আজ বৃহস্পতিবার, ৬ মাঘ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ, ১৯ জানুয়ারী ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : কুয়ালালামপুরে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মুসলিম দেশগুলোর বৈঠক       শুক্রবার স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পাচ্ছে ‘ট্রিপল এক্স’       বেলাল-পড়শী গাইলেন ‘জল শ্যাওলা’তে        দায়িত্ব হস্তান্তরের পূর্বের ভাষণে ট্রাম্পকে উদ্দেশ্য করে যা বললেন ওবামা       ভারতে সড়ক দূর্ঘটনায় ১৫ স্কুল শিক্ষার্থী নিহত       ব্লগার অভিজিৎ হত্যা: ২২ ফেব্রুয়ারি মামলার প্রতিবেদন দাখিল       ২০১৬ সাল ছিল ১০০ বছরের মধ্যে উষ্ণতম বছর      
ঐতিহাসিক এবং শিক্ষ্মমূলক কাহিনী
হযরত ওমর (রাঃ) কে খৃষ্টান বাদশাহর চার প্রশ্ন : কোরআন থেকে উত্তর
Published : Saturday, 31 December, 2016 at 11:50 AM, Update: 31.12.2016 12:25:37 PM, Count : 57
হযরত ওমর (রাঃ) কে খৃষ্টান বাদশাহর চার প্রশ্ন : কোরআন থেকে উত্তর ধর্ম ডেস্কঃ একবার এক খৃষ্টান বাদশাহ চারটি প্রশ্ন লিখে ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হযরত ওমর (রা.) এর কাছে পাঠালেন এবং আসমানী কিতাবের আলোকে উত্তর চাইলেন। তার প্রশ্ন চারটি ছিল-

১ম প্রশ্নঃ একই মায়ের পেট হতে দু'টি বাচ্চা একই দিনে একই সময় জন্মগ্রহন করেছে এবং একই দিনে ইন্তেকাল করেছে তবে তাদের একজন অপরজন থেকে ১০০ বছরের বড় ছিলো। তারা দুইজনকে?  কিভাবে তা হয়েছে?

২য় প্রশ্নঃ পৃথিবীর কোন স্থানে সূর্যের আলো শুধুমাত্র একবার পড়েছে। কেয়ামত পর্যন্ত আর কখনো সূর্যের আলো সেখানে পড়বে না?.

৩য় প্রশ্নঃ সে কয়েদী কে, যার কয়েদ খানায় শ্বাস নেওয়ার অনুমতি নেই আর সে শ্বাস নেওয়া ছাড়াই জীবিত থাকে?

৪র্থ প্রশ্নঃ সেটি কোন কবর, যার বাসিন্দা জীবিত ছিল এবং কবর ও জীবিত ছিল আর সে কবর তার বাসিন্দাকে নিয়ে ঘোরাফেরা করেছে এবং কবর থেকে তার বাসিন্দা জীবিত বের হয়ে দীর্ঘকাল পৃথিবীতে জীবিত ছিল?

হযরত ওমর (রাঃ) হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাঃ) কে ডাকলেন এবংউত্তর গুলো লিখে দিতে বললেন। ইবনে আব্বাস (রাঃ) উত্তরগুলো লেখেন। উত্তরগুলি ছিল-

১ম উত্তরঃ দুই ভাই ছিলেন হযরত ওযায়ের (আঃ) এবং ওযায়েয (আঃ). তারা একই দিনে জন্ম এবং একই দিনেইন্তেকাল করা সত্বেও ওযায়েয (আঃ) ওযায়ের (আঃ) থেকে ১০০ বছরের বড় হওয়ার কারন হল, মানুষকে আল্লাহ তায়ালা মৃত্যুর পর আবার কিভাবে জীবিত করবেন?  হযরত ওযায়ের (আঃ) তা দেখতে চেয়েছিলেন। ফলে আল্লাহ তাকে ১০০ বছর যাবত মৃত অবস্থায় রাখেন এরপর তাঁকে জীবিত করেন। যার কারনে দুই ভাইয়ের বয়সের মাঝে ১০০ বছর ব্যবধান হয়ে যায়।

২য় উত্তরঃ হযরত মূসা (আঃ) এর মুজিযার কারনে ‘বাহরে কুলযুম’ তথা লোহিত সাগরের উপর রাস্তা হয়ে যায় আর সেখানে সূর্যের আলো পৃথিবীর ইতিহাসে একবার পড়েছে এবং কেয়ামত পর্যন্ত আর পড়বে না।.

৩য় উত্তরঃ যে কয়েদী শ্বাস নেওয়া ছাড়া জীবিত থাকে, সে কয়েদী হল মায়ের পেটের বাচ্চা, যে নিজ মায়ের পেটে কয়েদখানায় (বন্দী) থাকে।.

৪র্থ উত্তরঃ যে কবরের বাসিন্দা জীবিত এবং কবর ও জীবিত ছিলো, সে কবরের বাসিন্দা হল হযরত ইউনুস (আঃ) আর কবর হল ইউনুস (আঃ) যে
মাছের পেটে ছিলেন সেই মাছটির পেট। আর মাছটি ইউনুস (আঃ) কে নিয়ে ঘোরাফেরা করেছিল। মাছের পেট থেকে বের হয়ে আসার পর হযরত ইউনুস (আঃ) অনেক দিন জীবিত ছিলেন। এরপর ইন্তেকাল করেন।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি