আজ বৃহস্পতিবার, ৫ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২০ জুলাই ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্তরা ঘরে বসেই পাবেন বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা       বেরোবিতে সিট দখল নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ : আহত ১০       রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি কারাগারে       ৩৫তম বিসিএস : নন ক্যাডারে নিয়োগ পেলেন আরও ১৪৬৬ জন       ৮ বছরে ১০ হাজার এসআইডি কার্ড ইস্যু করা হয়েছে : নৌপরিবহনমন্ত্রী       ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতি হলেন রামনাথ কোবিন্দ       ৭ কলেজের আন্দোলন ষড়যন্ত্রমূলক : ঢাবি ভিসি      
 স্বাধীনতা যুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেও
গৌরনদীর ৫ বীর মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভুক্ত হয়নি
Published : Thursday, 12 January, 2017 at 8:44 PM, Count : 67
গৌরনদী (বরিশাল) সংবাদদাতা : মহান স্বাধীনতাযুদ্ধে জাতির জনকের ডাকে সারাদিয়ে নিজেদের জীবনবাঁজি রেখে পাক সেনাদের সাথে একাধিক সম্মুখ যুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে লাল সবুজের বিজয় পতাকা ছিনিয়ে এনেছিলেন বরিশালের গৌরনদী উপজেলার কান্ডপাশা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক, বংকুরা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আক্কেল আলী বেপারী, আঃ হাকিম বেপারী, আধুনা গ্রামের আকবর আলী আকন ও চন্দ্রহার গ্রামের আবুল হোসেন হাওলাদার। বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক যুদ্ধকালীন সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন। আক্কেল আলী বেপারী, আঃ হাকিম বেপারী ও আকবর আলী আকন ছিলেন হেমায়েত বাহিনীর সদস্য। স্বাধীনতা যুদ্ধে তারা বিজয়ী হলেও জীবনযুদ্ধে হয়েছেন পুরোপুরি পরাজিত। সকল প্রকার সনদপত্র থাকা সত্বেও দেশ স্বাধীনের দীর্ঘদিন পরেও তারা মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় অর্ন্তভূক্ত হতে পারেননি। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে তালিকাভূক্ত হওয়ার জন্য তারা বিভিন্নস্থানে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। নিরুপায় হয়ে আদালতের স্মরনাপন্ন হয়েছেন কেউ কেউ।
বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক : উপজেলার কান্ডপাশা গ্রামের মুন্সি রাহেন উদ্দিন আহম্মেদ এর পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক ৭১ সালের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন সময়ে ভারতের কল্যানগড় ক্যাম্পে ৭ মাস যাবত মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন। পরবর্তী সময়ে তিনি ৮ নম্বর সেক্টরে যোগদান করে মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশ নেন। তার কাছে প্রশিক্ষন নিয়েছেন গৌরনদী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার মোঃ আলাউদ্দিন বালী সহ অত্র এলাকার বহু মুক্তিযোদ্ধা। তাদের নাম তালিকা ভুক্ত হলেও মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেলের নাম আজও তালিকাভুক্ত হয়নি।
আক্কেল আলী বেপারী : গৌরনদীর বংকুরা গ্রামের মৃত আঃ হামিদ বেপারীর পুত্র আক্কেল আলী বেপারী ১৯৭১ সালে দেশমাতৃকার টানে নিজের জীবনবাঁজি রেখে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পরেছিলেন। যুদ্ধকালীন সময়ে তিনি ফরিদপুরের জহরের কান্দি ট্রেনিং ক্যাম্প থেকে প্রশিক্ষন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বের ভূমিকা পালন করেন। তিনি আগৈলঝাড়ার পয়সার হাট, ঘাঘর, গৌরনদীর বাটাজোর এলাকায় সন্মুখ যুদ্ধে অংশ নেন। যুদ্ধে বীরত্বের ভূমিকা পালন করার জন্য হেমায়েত বাহিনীর প্রধান তাকে হেমায়েত বাহিনী পদকও প্রদান করেছেন। ৭১ সালে জীবনবাঁজি রেখে রণাঙ্গণে সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে তিনি লাল সবুজের বিজয় পতাকা ছিনিয়ে আনলেও স্বাধীনতার দীর্ঘদিন পর আজও তিনি জীবনযুদ্ধে হয়েছেন পুরোপুরি পরাজিত।
আঃ হাকিম বেপারী : উপজেলার বংকুরা গ্রামের মৃত ওসমান আলী বেপারীর পুত্র আঃ হাকিম বেপারী। ১৯৭১ সালের আগস্ট মাসে তিনি মুক্তিযোদ্ধা হেমায়েত বাহিনীর প্রধান হেমায়েত উদ্দিনের নির্দেশে তারই পরিচালিত ফরিদপুরের জহরেরকান্দি প্রশিক্ষণ সেন্টারে মুক্তিযুদ্ধের ট্রেনিং গ্রহণ করেন।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি