আজ রবিবার, ৫ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২০ আগস্ট ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : মণিরামপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক এম.এ রাজ্জাকের ইন্তেকাল       ভাঙ্গায় ৪ লাখ জাল টাকা সহ আটক ৪       পাইকগাছায় নিম্নমানের ইট দিয়ে রাস্তা নির্মাণকালে এলাকাবাসীর তোপে কাজ বন্ধ        নির্দিষ্ট স্থানে পশু কোরবানি কার্যক্রম বাস্তবায়নে খুলনা মহানগরীর বিশেষ সভা       ‘সিদ্ধিরগঞ্জ এর সরকারি সম্পত্তি’ নামক অ্যাপসের উদ্বোধন       লালপুরে ছাত্রদল সভাপতিকে পেটালো যুবলীগ সভাপতি       ঘোড়াঘাটে বানভাসীদের মাঝে ঔষধ ও শুকনা খাবার বিতরণ      
রাঙ্গামাটির পরিস্থিতি মহাবিপর্যয়কর    -জেলা প্রশাসক
Published : Monday, 19 June, 2017 at 9:49 PM, Count : 21
ভোরের ডাক ডেস্ক : ব্যাপক বৃষ্টিপাতের সময় পাহাড়ধসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাঙ্গামাটির সড়ক যোগাযোগ পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন। সড়কপথে যোগাযোগ পুরোপুরি স্বাভাবিক হতে এক থেকে দেড় মাস সময় লাগবে, জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। তবে প্রশাসন বলছে, আগামী তিনদিনের মধ্যেই রাঙ্গামাটি থেকে চট্টগ্রাম সড়কে হালকা যানবাহন চলাচল শুরু করা যেতে পারে। এদিকে পাহাড়ধসের ঘটনায় গত শনিবারও দুজনের মৃতদেহ উদ্ধারের কথা জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। এ নিয়ে পাঁচ জেলায় পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট দুর্যোগে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৫৮ জনে। শুধু রাঙ্গামাটিতেই অন্তত ১১০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। একে ‘মহাবিপর্যয়কর’ পরিস্থিতি হিসেবে বর্ণনা করছে রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসন। রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান বিবিসি বাংলার সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ‘মহাবিপর্যয়কর অবস্থা আমরা পার করছি। চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটির রাস্তা আমাদের লাইফ লাইন, এটার মাধ্যমে আমাদের সকল খাদ্যদ্রব্য বা অন্য কোনো কিছু পরিবহনের জন্য আমরা এটি ব্যবহার করে থাকি।’ ‘এ ছাড়া খাগড়াছড়ির সঙ্গে সংযোগ রাস্তা যেটি হয়েছিল, আরেকটি রাস্তা কাপ্তাই হয়ে বান্দরবান হয়ে চট্টগ্রাম যাবার রাস্তা এ সবকয়টিই বিপর্যস্ত’ -জানান মান্নান। তিনি জানান, সড়ক যোগাযোগ পুনস্থাপন করার জন্য জোরেশোরে কাজ করছে সামরিক-বেসামরিক প্রশাসন। তবে ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি হওয়ায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে বেশ সময় লাগে। এখন সব কাজই নৌপথে পরিচালিত হচ্ছে বলে জানান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান। তিনি বলছিলেন খাদ্য সংকটের মতো পরিস্থিতি এখনো সেখানে তৈরি হয়নি, যথেষ্ট খাদ্য মজুত রয়েছে রাঙ্গামাটিতে। ‘রাঙ্গামাটির বাজারে বিভিন্ন গোডাউন আমরা পর্যবেক্ষণ করে দেখেছি কোনো সংকট হতে পারে কি না। আগামী পনের দিনও যদি চাল, ডাল, তেলের সাপ্লাই না আসে তাহলেও কোনো সংকট হবে না’ বলেন রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসক। রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসকের মতে, এ মুহূর্তে প্রধান চ্যালেঞ্জ হলো ঘরবাড়ি হারানো মানুষের পুনর্বাসন। তিনি আশঙ্কা করছেন, আগের জায়গায় ঘর তুলে দিলে একই ভাগ্য হতে পারে। আবারো ভারী বর্ষণে বিভিন্ন পাহাড়ি এলাকায় ভূমিধসের ঝুঁকি রয়েছে, আর এমন ভূমিধসের পরে সবাই সচেতন হলেও মানুষের মধ্যে আতঙ্ক রয়েছে বলে জানান মান্নান। ‘স্মরণকালে যা ঘটেছে, একশো বছরে বা তারও আগে রাঙ্গামাটির পাহাড়ে এ ধরনের ঘটনা ঘটে নাই। আমরা আগের তুলনায় সচেতন হয়েছি। কিন্তু ভারী বৃষ্টিপাত হলে আশঙ্কাতো আছেই, এমনকি বৃষ্টি দেখে আমিও আতঙ্কিত।’ ‘এতগুলো লাশ দেখার পরে কেউ স্বাভাবিক থাকতে পারে না। এখন আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ এই মানুষগুলোর পুনর্বাসন।



« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি