আজ শনিবার, ১০ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৪ জুন ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : কাবা শরীফে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা নস্যাৎ       কাতারের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে ১৩টি শর্ত       ভারত-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত       চীনে ভূমিধসে শতাধিক লোক নিখোঁজ       মেসি-নেইমারদের ন্যু ক্যাম্পে মুশফিক       সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মুখে হাসি ফুটালো ‘ভালোবাসি জামালপুর’       গণমাধ্যমকর্মীদেরকে খালেদার ‘বাদামি খামে’ ঈদ শুভেচ্ছা : বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতি তৈরি      
গল্প নয়, শুধুমাত্র ১০ হাজার টাকায় ঘুরে আসুন ভুটান !
Published : Monday, 19 June, 2017 at 12:46 PM, Count : 113
গল্প নয়, শুধুমাত্র ১০ হাজার টাকায় ঘুরে আসুন ভুটান ! পলাশ খান: পরিচ্ছন্ন শহর, সুসভ্য নাগরিক, গহীন জঙ্গলে ছাওয়া পাহাড় বা দূষণহীন নদী দেখে আমাদেরও যদি একসময় নিজদেশে এই জিনিসগুলো নিশ্চিত করার আকাঙ্খা জাগার কোন সম্ভাবনা থাকে, তাহলে আমি বলবো ভারতের ট্যুরিস্ট ভিসার জন্য মারামারি, ধরাধরি, দালালের পেছনে ছোটাছুটি না করে বরং ভারতের ট্রানজিট ভিসা নিয়ে ঘুরে আসুন সুন্দর সুসভ্য দেশ ভুটান, একই খরচে। আর চাইলে আরেকটু বেশি খরচে বিনা ভিসায় আকাশপথে তো যেতে পারেনই।

ট্যুরিস্ট ভিসা ছাড়া আর কোন ভিসার জন্য টোকেন-ফোকেন, ক্যাম্প/ট্যাম্প লাগে না। ট্রানজিট ভিসার জন্যও না। পঁনের দিনের ভিসা দেবে, যাওয়ার সময় ৩ দিন, এবং আসার সময় ৩ দিন চাইলে ভারতও কিছুটা ঘুরে আসতে পারেন।

খরচ: শ্যামলির শিলিগুড়ি-ঢাকা আসা-যাওয়া টিকেট ৩০০০ টাকা (এসি বাস), ইন্ডিয়ান ভিসা প্রসেসিং ফি ৬০০ টাকা,  এনডোর্সমেন্ট ফি ১৩০-৫০০ টাকা (ব্যাংক ভেদে), ট্র্যাভেল ট্যাক্স (বাংলাদেশ সরকার) ৫০০ টাকা। বাসের সুপারভাইজার নেবে, নিয়ে ব্যাংকে জমা দিয়ে দেবে বুড়িমারীতে। ৫০ টাকা সার্ভিস চার্জ নেবে। ওরা সীমান্তের সব কাজে হেল্প করে। এমনকি ওই পাড়েও। বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন পুলিশ কোন রিসিট ছাড়া আসা ও যাওয়ার সময় প্রতিবার ১০০ টাকা নেবে, যদি আপনার সবকিছু ঠিক থাকে। না থাকলে আরও বেশি। বিনিময়ে চেকিং বা হ্যারাস করবে না। ট্রানজিট ভিসার জন্য অনলাইনে অথবা সরাসরি গিয়ে আবেদন করতে পারবেন।

চ্যাংড়াবান্ধা থেকে জয়গাঁও ট্যাক্সিতে জনপ্রতি ৩০০-৩৫০ রুপি। বাসে গেলে ময়নাগুড়ি থেকে জয়গাঁও, অর্ধেকের কম খরচ। জয়গাঁও ইমিগ্রেশনের কাজ সেরে ভুটান গেইট দিয়ে ফুন্টসোলিং হেঁটে ঢুকতে হবে, কোন খরচ নাই। এখানেই আপনাকে অন অ্যারাইভাল ভিসা দিয়ে দেবে। সাথে এক কপি ছবি ও পাসপোর্টের ফটোকপি রাখবেন। বালাদেশে থাকতেই মোবাইল ফোনে গুগুল ম্যাপে জায়গাগুলো দেখে রাখবেন, পরে নেটওয়ার্ক ছাড়াও ক্যাশের জমে থাকা ম্যাপ দিয়ে পথ চিনতে পারবেন। এটা করলে ভেঙে ভেঙেও বাসে চলাচল করা সম্ভব। তাতে সময় বাঁচে।
ফুন্টসোলিংয়ে ৮০০-১২০০ নিউলট্রামে (Ngultrum, গুলট্রাম নয়) হোটেলে ঝকঝকে ডাবল রুম পাবেন, গিজার সহ। অর্থাৎ মাথাপিছু খরচ ৪০০-৫০০ নিউ। খাওয়া খরচ আপনার ওপর। মোমো/থুকপা খেলে ৪০-৬০ নিউ, ভাত খেলে ১৩০-২৫০ নিউ লাগবে। চা ২০ নিউ। মিনারেল ওয়াটার না কিনলেও পারেন, ওদের নরমাল পানি ভাল। রুপি আর নিউলট্রামের ভ্যালু একই। রুপিও চলে পুরো ভুটানেই।

ফুন্টসোলিং পৌঁছেই পরের দিন দুপুরের বাসের টিকিট কেটে রাখলে থিম্পু যেতে পারেন বাসে। ২৪০ নিউ লাগবে। এই ফাঁকে ফুন্টসোলিং দেখে নিন। সুন্দর আছে। হেঁটেই দেখুন, ভালমত দেখতে পাবেন। ছোট্ট শহর। পাশে সুন্দর নদী, মধ্যদিয়ে ঝর্ণা বয়ে গেছে। পাহাড় তো আছেই। মানুষও দেখার মত। প্রায় সবাই খুব সুন্দর ইংরেজি বলে, ফলে যোগাযোগে সমস্যা হবে না। আর যারা হিন্দি বলতে পারেন, তাদেরও সমস্যা হবে না। শুধুমাত্র ফুন্টসোলিং দেখার জন্যও ভুটান যেতে পারেন। তাতেও পোষাবে। খরচ হবে ৮/৯ হাজার টাকা মাত্র। ভারতের জয়গাঁও থেকে ফুন্টসোলিং ঢুকলেই মনে হবে, দক্ষিণ এশিয়া থেকে ইউরোপ চলে এলেন। ভুটানের মানুষের মন অবশ্য দক্ষিণ এশিয়দের মতোই, ফলে সবার সাথে প্রাণ খুলে কথা বলতে পারবেন, পথের সন্ধান জানতে চাইতে পারবেন। সবাই হেল্পফুল। ট্যাক্সিতে থিম্পু গেলে মাথাপিছু ৬০০ নিউ লাগবে। বাসের টিকিটের সংকট আছে, বাসও খুব বেশি না।

থিম্পুতে হোটেল খরচ/খাওয়া খরচ ফুন্টসোলিংয়ের মতই। অর্থাৎ দিনে ১ হাজার টাকায়ই হয়ে যাবে। ট্যাক্সি ছাড়াও ঘোরা সম্ভব, মজাই লাগে। দু একটা জায়গায় ট্যাক্সি খরচ যোগ করতে হবে। শেয়ার করলে খরচ কমই। থিম্পু এক রাত থেকে পরদিন সকালে রওনা দিয়ে ভারতের শিলিগুড়ি বা কালিম্পং চলে আসতে পারেন সারা দিনে। রাতটা কাটিয়ে পরের দিন বর্ডার ক্রস করে দেশে ঢুকতে পারেন। আমি হলে শিলিগুড়ি না এসে ফুন্টসোলিংয়ে, অর্থাৎ ভুটানেই রাতটা কাটিয়ে পরদিন বিকালে চ্যাংড়াবান্ধা ক্রস করবো।

এ পর্যন্ত যাওয়া আসা ও ভুটান ও/বা ভারতে ৩ রাতের খরচ মিলে বোধহয় ১০ হাজার টাকার মতো হলো। বাসে করে পারোও যেতে পারবেন, প্রতি দিনের জন্য এক-দেড় হাজার টাকা যোগ করুন। শেয়ারড ট্যাক্সিতেও মাথাপিছু মাত্র ২০০ নিউ লাগে, ফলে আমরা ট্যাক্সি নিতে পারেন। এমনকি থিম্পু থেকে পুনাখাও যেতে পারেন, ট্যাক্সিতে ৩০০ টাকা। একই দিনে পুনাখা জং (মনেস্ট্রি কাম সরকারী অফিস) দেখে থিম্পু ফিরে আসতে পারেন। বাসে গেলে আগের দিন টিকিট কাটতে হবে। বাসে গেলেও একই বাসে থিম্পু ফিরে আসতে পারবেন। এখন কিন্তু ১০ হাজার+ এর কথা বলছি ! যেতে পারেন মধ্য ভুটানের বুমথাংয়েও। সেক্ষেত্রে বাসেই যেতে হবে, ট্রিপ লম্বা করতে হবে, কারণ যেতে সারাদিন, আসতে আরও একদিন লাগে। তবে অনেক সুন্দর জায়গাটা। ও হ্যাঁ, পুনাখা বা বুমথাং যেতে হলে থিম্পু থেকে স্পেশাল পারমিট নিয়ে নিতে হবে থিম্পু পৌঁছেই। কোন টাকা লাগবে না, শুধু ফর্ম ফিলাপ করতে হবে। যাবার পথে চেকপোস্টে কাগজ দেখাতে হবে।

আর ভুটান বর্ডারে অন অ্যারাইভেল ভিসা পাবেন ৭ দিনের।  চাইলে থিম্পুতে গিয়ে আরও চারদিন এক্সটেন্ড করে নিতে পারেন, ফলে মোট ১১ দিন ঘুরতে পারবেন ভুটানে। ফুন্টসোলিং, পারো, থিম্পু, পুনাখা/ওয়াংদি ও বুমথাং। ফেরার পথে ভারতে কালিম্পং ও দার্জিলিং। দুইজন মিলে গেলে একটু সচেতন হলেই কোন এজেন্ট ছাড়াই, ১৩ দিনের ট্রিপে খরচ হয়েছে সর্বসাকুল্যে মাত্র ৫৫০ ডলারের মত খরচ হতে পারে। অর্থাৎ জন প্রতি প্রায় ২৭৫ ডলার।

ভিসার মেয়াদ বাড়াতে ও পুনাখা/ বুমথাংয়ের পারমিট নিতে থিম্পু হোটেল থেকে ৬০ নিউ দিয়ে ট্যাক্সিতে ইমিগ্রেশন অফিস যেতে হবে। হেঁটেও যেতে পারবেন, কাছেই। ওখানে বললেই ফরম দেবে। পূরণ করে জমা দেবার ঘণ্টা খানেকের মধ্যে পেয়ে যাবেন।

বি: দ্র:-  ভুটান পরিচ্ছন্ন দেশ। সবার সাথে বিনীত আচরণ করবেন, ভুটানের লোকেরা প্রতিবেশি অন্যান্য দেশের মানুষদের চাইতে বাংলাদেশিদের বেশ শ্রদ্ধা করে। ঘড়ি দেখে চলুন। ওদের সকাল ৮ টার বাস ৮:০০ বাজেই ছাড়ে। আধঘণ্টা আগে রিপোর্ট করার নিয়ম। দেরী করলে বাস মিস করবেন, তখন আর ১০ হাজার টাকায় হবে না। গেলে এখনই যাওয়া ভাল। সেপ্টেম্বর-অক্টোবর থেকে সাদা চামড়ার ট্যুরিস্টদের উৎপাতে সবকিছুর দাম বেড়ে যেতে পারে।


(তানিম আশরাফের লেখা থেকে সংগৃহীত )


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি