আজ রবিবার, ৩ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : আগামী নির্বাচনেও শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসবে : নৌমন্ত্রী       ছায়েদুল হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক       শহীদ পুলিশ সদস্যদের প্রতি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী-আইজিপির শ্রদ্ধা নিবেদন       বাবা-মায়ের পাশে শায়িত হবেন ছায়েদুল হক       জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা       রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা শাসকগোষ্ঠীর দমননীতির বহিঃপ্রকাশ       পঞ্চগড়ে বিজয় বাইসাইকেল র‌্যালি      
রাজনগর উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ
Published : Monday, 19 June, 2017 at 5:16 PM, Update: 19.06.2017 5:27:36 PM, Count : 387
রাজনগর উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগরাজনগর (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা : মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আছকির খানের বিরুদ্ধে সরকার বিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের সমর্থন, স্বৈরাচারী, অগণতান্ত্রিক সেচ্ছাচারিতা ও বিভিন্ন অনিয়মের ফিরিস্তি দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন উপজেলার ইউপি চেয়ারম্যানরা। 

এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী কার্যক্রমেরও অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে। সোমবার বিকালে রাজনগর উপজেলা প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য দিয়ে ১৫টিরও বেশি অভিযোগ আনেন তার বিরুদ্ধে। 

লিখিত বক্তব্য থেকে জানা যায়, রাজনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আছকির খান ২০১৪ সালের মার্চে উপজেলা চেয়ারম্যান হওয়ার পর থেকে বিভিন্ন অনিয়ম ও সেচ্ছাচারিতা করছেন। সরকারী  টিআর/কাবিখা বরাদ্দের শতকরা ২০ ভাগ তিনি ইচ্ছামতো বন্টণ করেন অনিয়ম করে থাকেন। 

এছাড়াও ইউনিয়ন পরিষদের বরাদ্দ থেকে তাকে প্রকল্প না দিলে তিনি স্কীমের ফাইলে স্বাক্ষর না করে ফাইল আটকে দেন। ৭১ সালে পাঁচগাঁওয়ের পাকিস্থানিদের হামলায় নিহতদের গণকবর সংরক্ষনের জন্য উপজেলার পরিষদের পক্ষ থেকে একটি প্রকল্প নেয়া হয়। কিন্তু স্বাধীনতা ও মুক্তিযোদ্ধের চেতনা বিরোধী তার মনোভাব ও অনিয়মের কারণে এ প্রকল্প আটকে দেন। 

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ফতেহপুর ইউপি চেয়ারম্যান নকুল চন্দ্র দাস, মুন্সিবাজার ইউপি চেয়ারম্যান ছালেক মিয়া, পাঁচগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান শামছুন নূর আজাদ, সদর ইউপি চেয়ারম্যান দেওয়ান খয়রুল মজিদ সালেক, টেংরার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান রিপন মিয়া, কামারচাক ইইপি চেয়াম্যান নজমুল হক সেলিম ও মনসুরনগর ইউপি চেয়ারম্যান মিলন স্বাক্ষর করেন। 

লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মনসুরনগর ইউপি চেয়ারম্যান মিলন বখত। এছাড়াও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কামান্ডার সজল চক্রবর্তী উপস্থিত ছিলেন। উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের কামান্ডার সজল চক্রবর্তী ও ডেপুটি কামান্ডার কুতুবুর রহমানও চেয়ারম্যানদের বক্তব্যের সঙ্গে সহমত পোষণ করেন।

লিখিত বক্তব্যে ইউপি চেয়ারম্যানরা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আছকির খান গত বছরের ২১ ডিসেম্বরের আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় কামারচাক ইউনিয়নের যুদ্ধাপরাধী আব্দুল মছব্বিরের ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করেন। কিন্তু তিনিই গত ১০ জুন ওই যুদ্ধাপরাধির ছেলের শাড়ী বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে সরকার ও আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছেন। এটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী। 

অভিযোগে আরও বলা হয়, এডিপি প্রকল্পের ঠিকাদার নিয়োগে তিনি গুরুতর অনিয়ম করেছেন।

এছাড়াও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কার্যালয় হিসেবে সাবেক বাসাটি বিভিন্ন অর্থবছরে ২০ লাখেরও বেশি টাকায় সংস্কার করা হয়। কিন্তু তিনি ওই অফিস ব্যবহার না করে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের বিনোদন কেন্দ্র দখল করে নিয়ম বর্হিভূত ভাবে অফিসের কাজ করিয়ে বিল তুলে নেন। তৃতীয় শ্রেণীর কর্মকচারীদের বিনোদন কেন্দ্র জোরপূর্বক দখল করায় তারা বিনোদন থেকে বঞ্ছিত হচ্ছেন। 

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, উপজেলা পরিষদের সরকারি জীপ পরিষদের চালক দ্বারা ব্যবহার করছেন না। নিয়ম বহিভূতভাবে ব্যক্তিগত চালক দিয়ে গাড়ি ব্যবহার করে গাড়ীর জ্বালানি ও মেরামত বিল নামে বেনামে উত্তোলন করছেন। এছাড়াও জেলার উন্নয়ন সমন্নয় সভা, জেলার আইন শৃঙ্খলার সভায় দীর্ঘ দিন থেকে  না যাওয়ার কারণে সরকারি বিভিন্ন বরাদ্দ থেকে রাজনগর উপজেলাবাসী বঞ্ছিত হচ্ছেন এবং  উপজেলার আইন শৃঙ্খলার অবনতি হলেও তিনি জেলার সভায় তা উপস্থাপন না করায় উপজেলার আইনশৃঙ্খলার উন্নতি হচ্ছে না। অথচ তিনি এসবের ভ্রমন বিল উত্তোলন করছেন। এছাড়াও উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আছকির খান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে সরকারি গভীর নলকুপ একক ভাবে নিজের পছন্দের লোকদের মধ্যে অনিয়মের মাধ্যমে বিতরণ করায় প্রকৃত সুবিধা বঞ্ছিত মানুষ সরকারি সেবা থেকে বঞ্ছিত হয়েছেন। 

লিখিত বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যানের ছেলে প্রাইমারী শিক্ষক আসাদুজ্জামান খান রাসেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, চেয়ারম্যান শিক্ষা কমিটির সভাপতি থাকায় প্রাথমিক শিক্ষকদের অর্থের বিনিময়ে বদলি করে থাকেন। তাদের ভয়ে কেউই মুখ খুলতে চান না। 

এসব অভিযোগের ব্যাপারে রাজনগর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আছকির খান বলেন, আমি জানি আমি সম্পূর্ণ নির্দোষ। এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। অজান্তে কোন কিছু হয়ে থাকলে এর জন্য বৈধ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সুষ্ঠ তদন্ত করা প্রয়োজন। কারো মনগড়া বক্তব্য দিলে হবে না।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি