আজ শনিবার, ২ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা শাসকগোষ্ঠীর দমননীতির বহিঃপ্রকাশ       পঞ্চগড়ে বিজয় বাইসাইকেল র‌্যালি       একদিনে ২৯ জঙ্গিকে ফাঁসি দিল ইরাক       শনিবার স্মৃতিসৌধে যাবেন খালেদা জিয়া        উ.কোরিয়ার মোকাবেলায় একসঙ্গে কাজ করবে মার্কিন-রাশিয়া       ঠাকুরগাঁও টিকিট কাটাকে কেন্দ্র করে কর্তৃপক্ষের হামলায় আহত ৫       নওগাঁয় ওভারব্রিজে ধাক্কা লেগে ট্রেনের ১যাত্রীর মৃত্যু      
১০ অক্টোবর আজহার-কায়সারের আপিল শুনানি
Published : Sunday, 13 August, 2017 at 10:59 AM, Count : 52
১০ অক্টোবর আজহার-কায়সারের আপিল শুনানি
স্টাফ রিপোর্টার : মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডদেশপ্রাপ্ত জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল এ টি এম আজহারুল ইসলাম ও জাতীয় পার্টির সাবেক নেতা সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারের আপিলের সারসংক্ষেপ ২৪ আগস্টের মধ্যে জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

একই সঙ্গে দুটি আপিল শুনানির জন্য ১০ অক্টোবর তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

রবিবার সকালে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে তিন বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

অন্য দুই বিচারপতি হচ্ছেন- বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার।

আদেশে বলা হয়, ২৪ আগস্টের মধ্যে আপিলের সার সংক্ষেপ জমা দিতে হবে। ১০ অক্টোবর আপিল শুনানি শুরু হয়ে কোনো ধরনের মুলতবি ছাড়াই চলবে।

আদালতে এদিন এ টি এম আজহারুলের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট-অন-রেকোর্ড জয়নুল আবেদীন তুহিন। আর কায়সারের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এস এম শাহজাহান। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহাবুবে আলম।

জানা গেছে, অ্যাটর্নি জেনারেল দুই মামলায় আলাদা শুনানির আবেদন করলে প্রধান বিচাপরতি বলেন, “আপনারা অনেক সময় নিয়ে নিয়েছেন। লিখিত আর্গুমেন্ট জমা দেবেন, ‍শুনানি হবে।

প্রসঙ্গত, গত ২০১৪ সালের ৩০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ রংপুরের আলবদর কমান্ডার যুদ্ধাপরাধী এটিএম আজহারুল ইসলামকে  মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন। পাশাপাশি তাকে ৩০ বছরের কারাদণ্ড দেন। ট্রাইব্যুনালের দেওয়া এই রায়ের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ২৮ জানুয়ারি খালাস চেয়ে আপিল করেন এই জামায়াত নেতা।  

জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল এটিএম আজহারুল ইসলাম একাত্তরে ইসলামী ছাত্র সংঘের জেলা কমিটির সভাপতি ছিলেন। সে সময় তার নেতৃত্বেই বৃহত্তর রংপুর এলাকায় হত্যা, ধর্ষণ, অপহরণ, নির্যাতন, বাড়িঘরে লুটপাট, অগ্নিসংযোগের মতো বর্বরতা চালানো হয়।

অপরদিকে মুক্তিযুদ্ধের সময় হবিগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণসহ বিভিন্ন মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে রাজাকার সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারকে ২০১৫ সালের ২৩ ডিসেম্বর মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। ওই রায়ের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ১৯ জানুয়ারি আপিল করেন কায়সার।  

একাত্তরে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় 'কায়সার বাহিনী' গঠন করে ওই দুই জেলায় যুদ্ধাপরাধে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এই মুসলিম লীগ নেতা। অন্য অপরাধের পাশাপাশি দুই সাঁওতাল নারীসহ তিনজনকে ধর্ষণের দায়ে এই মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি