আজ বুধবার, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : থার্টি ফার্স্টে বন্ধ থাকবে বার, বৈধ অস্ত্র বহন নিষিদ্ধ       মগবাজার ফ্লাইওভারে চলন্ত বাসে আগুন       রাজধানীতে সেলুনে বিস্ফোরণে দগ্ধ ৩       'আজেবাজে জিদ' করেন না মাশরাফি       গোদাগাড়ীতে বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২       বিপিএল শিরোপা জিতলো রংপুর       পাঁচবারের চারবারই 'চ্যাম্পিয়ন' মাশরাফি      
অভিযান পূর্ব পরিকল্পিত
স্থায়ী সংকট হতে যাচ্ছে রোহিঙ্গা
Published : Friday, 13 October, 2017 at 10:54 PM, Count : 84
রোহিঙ্গাদের শুধু রাখাইন থেকে তাড়ানো নয়, তারা যাতে আর ফিরে যেতে না পারে, সেই লক্ষে কাজ করেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। ২৫ আগস্ট পুলিশ ক্যাম্প ও সেনা চৌকিতে হামলার আগে থেকেই সে দেশের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা উচ্ছেদের পরিকল্পনা করে রেখেছিল। জাতিসংঘের সাম্প্রতিক প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এই তথ্য প্রকাশ পেয়েছে। বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলে জাতিসংঘের কর্মকর্তারা ওই প্রতিবেদন তৈরি করেছেন। ওই প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সে দেশের সেনাবাহিনী এমন বিভৎস অত্যাচার করেছে, যাতে রোহিঙ্গারা আরাকানে ফিরে যাওয়ার সাহস না পায়। এমনকি ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণ করেছে সেনারা, মায়ের কোল থেকে শিশুকে কেড়ে নিয়ে আছড়িয়ে খুন করা হয়েছে। পুরুষদের একটা ঘরে আটকে রেখে ওই ঘরে আগুন দিয়ে দেয়া হয়েছে। আর নারী ধর্ষণ তো নিত্য ঘটনা ছিল, যা নির্বিচারে করা হয়েছে। এসব করা হয়েছে এই জন্য যে যাতে বেঁচে থাকা রোহিঙ্গা আতংকগ্রস্ত হয় এবং সেদেশে ফেরার কথা চিরতরে ভুলে যায়। এখন বাংলাদেশে ঢুকে পড়া অনেক রোহিঙ্গাই আর ফিরে যেতে চাচ্ছে না। বুঝাই যাচ্ছে রোহিঙ্গা সংকট বাংলাদেশের জন্যে একটা স্থায়ী সংকট হিসেবে রূপ নিতে যাচ্ছে।
মিয়ানমারে মুসলমানরা শুধুমাত্র রাখাইনে থাকে না। সারা মিয়ানমারেই কম বেশি মুসলমান আছে। সেদেশের প্রধান শহর ইয়াংগুনে বেশ কিছু মসজিদও আছে। সেখানে অনেক বড় বড় মুসলিম ব্যবসায়ীও আছে। কিন্তু কোন সমস্যা নেই, তারা স্থানীয় বৌদ্ধ জনগোষ্ঠীর সাথে মিলে মিশে থাকে। সব সমস্যা হচ্ছে রাখাইনের রোহিঙ্গা মুসলমানদের নিয়ে। কারণ তারা স্বাধীনতাকামী। তারা রাখাইন রাজ্যকে স্বাধীন করতে চায়, অথবা বাংলাদেশের সাথে সংযুক্ত হতে চায়। তারা ৪৭ উত্তরকালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সাথে যুক্ত হতে চেয়েছিল। পরে ’৭১ উত্তরকালে দ্বিতীয় দফায় বাংলাদেশের সাথে যুক্ত হওয়ার দাবি তুলেছিল। তারা তাদের দাবি আদায়ের জন্য প্রায় ৭০ বছর ধরে সশস্ত্র সংগ্রাম করছে। এই প্রেক্ষাপটে সে দেশের জান্তা সরকার রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের নাগরিক বিবেচনা করে, তাদের হত্যা নির্যাতন চালিয়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকিয়ে দিতে চায়। এটা তাদের রাষ্ট্রীয় নীতি। অতি সম্প্রতি তারা বাংলাদেশ থেকে শরণার্থী ফিরিয়ে নিতে চেয়েছিল। তাদের নেত্রী অং সান সুচি জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ থেকে ফিরিয়ে নেয়ার কথা বলেছিলেন, সেই মর্মে আলোচনার জন্য বাংলাদেশে মন্ত্রীও পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু এসবই ছিল আন্তর্জাতিক চাপের মুখে মিয়ানামায়ের কৌশল। এখন মিয়ানমার ওই বক্তব্য থেকে সরে যেতে চাইছে। অন্যদিকে নতুন করে যে ৫ লাখ রোহিঙ্গা এসেছে তারা বাংলাদেশে ঢুকেই বলেছিল তারা দেশে ফিরে যেতে চায়। কারণ সেটা না বললে তাদের এদেশে আশ্রয় মিলতো না। এখন ওই রোহিঙ্গারা বলছে তারা আর ফিরতে চায় না। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে বাংলাদেশ মানবিকতা দেখাতে যেয়ে ফেঁসে গেছে।
এটা ঠিক যে মধ্যযুগে আরাকানে একটা শক্তিশালী মুসলিম রাষ্ট্র ছিল। তারা দীর্ঘদিন চট্টগ্রাম অধিকার করে রেখেছিল। কিন্তু আরকানের সেই শক্তি একটা সময় আর থাকেনি। আরাকান বর্মীবাজের অধীনতা মেনে নিয়েছিল। মিয়ানমারের স্বাধীনতার সময় আরাকান বার্মার একটা অংশ ছিল। বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামও তো শত শত বছর ধরে স্বাধীন ছিল। ’৪৭ উত্তরকালে তারা আপসন দিয়ে পাকিস্তানের অংশ হয়, মাঝেমধ্যে স্বাধীনতার দাবি তুললেও তারা অনুধাবন করেছে সেটা সম্ভব নয়। এখন পার্বত্য বসবাসরতরা বাংলাদেশের অংশ হিসেবেই টিকে আছে। রোহিঙ্গাদেরও তেমনটা করা উচিত ছিল। তাহলে তার মর্যাদা নিয়েই মিয়ানমারের নাগরিক হিসেবে থাকতে পারতো। সেটা যা হওয়ার তা হয়েছে। এখন বাংলাদেশকে মিয়ানমারের উপর চাপ বজায় রাখার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখতে হবে, পাশাপাশি আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের বুঝতে হবে, যে মিয়ানমার তাদের দেশ এবং তাদের সেখানেই ফিরে যেতে হবে।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি