আজ শুক্রবার, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৪ নভেম্বর ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : সততা ও উন্নয়নের কারণেই আগামীতেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা       চট্টগ্রাম পর্বের শুরুতে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে খুলনা       ফতুল্লায় ভেকু চাপায় শ্রমিকের মৃত্যু, লাশ গুম চেষ্টার অভিযোগ       রংপুর-খুলনা ম্যাচ দিয়ে বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্ব শুরু       ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদে বারী সিদ্দিকীর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত       কালিয়াকৈরে ট্রেন-ট্রাক সংঘর্ষ, ট্রেনের সহকারী চালক নিহত       জিয়াউর রহমানের ছোট ভাই কামাল আর নেই      
ফরহাদ মজহার অপহরণের প্রমাণ পাওয়া যায়নি
Published : Wednesday, 15 November, 2017 at 8:35 PM, Count : 20
কোর্ট রিপোর্টার : কবি ও কলামিস্ট ফরহাদ মজহার অপহরণ হয়েছিলেন বলে কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি মর্মে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। পাশাপাশি মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত ও হয়রানি করেছেন বলে ফরহাদ মজহার ও তার স্ত্রী ফরিদা আক্তারের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশন মামলা দায়েরের অনুমতি চাওয়া হয়েছে।
অপহরণ করে চাঁদা দবির অভিযোগে দায়ের করা ওই মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক মাহাবুবুল ইসলাম ওই চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদনে দ বিধির ২১১/১০৯ ধারার অভিযোগে ফরহাদ মজহার ও তার স্ত্রীর বিরু্েদ্ধ প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করার অনুমতি চেয়েছেন।   
আদালতে প্রসিকিউশন শাখার সাধারন নিবন্ধন কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক নিজাম উদ্দিন গতকল মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গত বৃহস্পতিবার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল হলেও আগামি ৭ ডিসেম্বর প্রতিবেদনটি সংশ্লিষ্ট আদালতে উপস্থাপন করা হবে।  
ঘটনার পর মাত্র ১৯ ঘণ্টার ব্যবধানে উদ্ধার করার পরদিন এ মামলায় গত ৪ জুলাই ফরহাদ মজহার আদালতে জবানবন্দি দেয়। গত ৬ জুলাই মামলাটিতে হানিফ পরিবহনের কর্মচারী নাজমুস সাদাত সাদী ও গত ১১ জুলাই অর্চনা নামে এক নারী সাক্ষী হিসেবে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ থারায় জবানবন্দি দেয়।
ঘটনার ভিকটিম হিসাবে গত ৪ জুলাই তিনি ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম মো. আহসান হাবিবের খাস কামরায় জবানবন্দি দেন। জবানবন্দিতে তিনি জানান, ‘সরকারকে বিব্রত করতেই তাকে অপহরন করা হয়েছিল। সোমবার ভোরে আমি ওষুধ কেনার জন্য বাসা থেকে বের হই। পথিমধ্যে কে বা কারা আমাকে জোর করে মাইক্রোবাসে তুলে নেয়। এ সময় তারা আমার চোখ বেঁধে ফেলে। আমি তাদের কাউকে চিনতে পারিনি। তারা কতজন ছিল তাও সঠিক জানি না। অপহরণের পর তারা আমার কাছে কোনো চাঁদা দাবি করেনি। আমি নিজেই মুক্তি পাওয়ার জন্য তাদের টাকার অফার করি। এরপর টাকার জন্য বাসায় ফোন করি। তবে তারা আমার কাছ থেকে টাকা না নিয়েই ছেড়ে দেয়।’ স্বীকারোক্তি দেওয়ার পর বিচারক তার নিজ জিম্মায় বাড়ি ফেরার অনুমতি দেন।
চলতি বছরের গত ৩ জুলাই ভোর সোয়া ৫টার দিকে ফরহাদ মজহার শ্যামলীর রিং রোডের ১ নম্বর হোল্ডিং এর হক গার্ডেনের বাসা থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হন। এরপর একটি সাদা মাইক্রোবাসে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তাকে তুলে নিয়ে যায়। বিষয়টি তিনি স্ত্রী ফরিদা আখতারকে মোবাইলে জানান। এরপর আরও অন্তত পাঁচ বার তিনি স্ত্রীর কাছে ফোন করে মুক্তিপণ হিসেবে বিভিন্ন অঙ্কের টাকা দেয়ার কথা বলেন। বিষয়টি নিয়ে দিনভর দেশজুড়ে আলোচনা চলতে থাকে।
অপহরণের পর ফোন করে ৩৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে রাতেই তার স্ত্রী ফরিদা আক্তার বাদি হয়ে আদাবর থানায় মামলা দায়ের করেন। এর আগে তিনি জিডি করেছিলেন।
প্রসঙ্গত, তাকে উদ্ধার করার পর সোমবার রাত ১টা ২০ মিনিটে খুলনার ফুলতলা থানায় সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি দিদার আহমেদ জানিয়েছিলেন, ফরহাদ মজহারের ব্যাগে মোবাইল ফোনের চার্জার, শার্টসহ বেড়াতে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিস পাওয়া গেছে। ব্যাগ দেখে বোঝা যায় যে তিনি স্বেচ্ছায় ভ্রমণে এসেছেন। তিনি সুস্থ আছেন।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি