আজ শুক্রবার, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৪ নভেম্বর ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : সততা ও উন্নয়নের কারণেই আগামীতেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা       চট্টগ্রাম পর্বের শুরুতে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে খুলনা       ফতুল্লায় ভেকু চাপায় শ্রমিকের মৃত্যু, লাশ গুম চেষ্টার অভিযোগ       রংপুর-খুলনা ম্যাচ দিয়ে বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্ব শুরু       ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদে বারী সিদ্দিকীর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত       কালিয়াকৈরে ট্রেন-ট্রাক সংঘর্ষ, ট্রেনের সহকারী চালক নিহত       জিয়াউর রহমানের ছোট ভাই কামাল আর নেই      
ভোলাহাটের রামেশ্বর হাইস্কুলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ
Published : Wednesday, 15 November, 2017 at 2:26 PM, Update: 15.11.2017 2:44:54 PM, Count : 31
ভোলাহাটের রামেশ্বর হাইস্কুলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগভোলাহাট (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) সংবাদদাতা : ১৯১১ সালে স্থাপিত ভোলাহাট উপজেলার প্রথম হাইস্কুল রামেশ্বর পাইলট মডেল ইনস্টিটিউশন।

উপজেলায় এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রতিষ্ঠান। সম্প্রতি এ পুরাতন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে জালিয়াতি ও দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এসবের দেখভাল করবে কে তার মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। 

১৯ আগষ্ট ২০১৫ সালে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর থেকে উপ-পরিচালক (প্রাক্তন) এসএম কামরুজ্জামান ও সহঃশিক্ষা পরিদর্শক কাওসার হোসেন এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি পরিদর্শনে আসেন।

*তারা পরিদর্শন প্রতিবেদনে গর্ভনিং বডির মেয়াদ শেষ হওয়ায় অবিলম্বে নিয়মিত কমিটি গঠন করে রেকর্ড প্রদর্শন করতে বলা হলেও এখন পর্যন্ত তা করা হয় নি। শিক্ষকদের সমন্বয়ে স্টক টেকিং কমিটি করার কথা বলা হলে সেটিও করা হয় নি। এদিকে ১২ সালে ২৩ ফেব্রুয়ারী সমাজ বিজ্ঞানের সহকারী শিক্ষক হামিমা খাতুন (ইনডেক্স-১০৬৮৩২২) নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে। একই বছর ১ নভেম্বর ৮ হাজার টাকার স্কেলে এমপিও ভুক্ত হয় তিনি।

পরিদর্শনকালে এ শিক্ষকের নিবন্ধন সনদ যাচাই করে জাল ধরা পড়ে। ফলে তার বেতন ভাতা বাবদ গৃহীত ১৫ সাল ৩০ জুলাই পর্যন্ত ২ লাখ ৬৭ হাজার ৬৮০ টাকা সরকারী কোষাগারে ও এর পরে যে বেতন ভাত নিয়েছেন তার টাকাও সরকারী কোষাগারে জমা দেয়ার জন্য বলা হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত টাকা ফেরৎ নেয়া তো দূরের কথা তার বিরুদ্ধে আইনগত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেন নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

এদিকে প্রতিষ্ঠানের অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা ৩ মাস অন্তর অন্তর করা হয় না। ফলে এ কমিটি গঠন করে প্রতিষ্ঠানের আয়-ব্যয়ের হিসাব করার কথা বলা হলেও তা মানা হচ্ছে না। এদিকে ১৭ সালের ১০আগষ্ট স্কুল সংলগ্ন তেলীপাড়া গ্রামের আব্দুল হকসহ ২জন বাদি হয়ে উপজেলা নিবার্হী অফিসার বরাবর প্রতিষ্ঠানের সম্পদ নামকাস্তে ৮০ লাখ টাকায় বিক্রয় করে প্রধান শিক্ষক সাদিকুল ইসলামসহ কয়েকজন মিলে আত্মসাৎ করার অভিযোগ আনে।

অভিযোগে নিয়ম বহির্ভূত ভাবে ১২ বছর মেয়াদে ৬০ হাজার টাকায়, খাদ্যগুদামের পাশে আমবাগান ৪ লাখ টাকায় এছাড়াও প্রতিষ্ঠানের মাঠের পশ্চিমে জীবিত নিমগাছসহ মেহগুনী গাছ বিক্রয় করে ৪ লাখ টাকা মোট ৮০ লাখ টাকা আত্মসাত করেছে। আর এসব অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি ধামাচাপা দিতে ২০১৪ সালে আবারও এডহক কমিটি করে অনিয়মতান্ত্রীক ভাবে চলে আসছে।

অপরদিকে প্রতিষ্ঠানের সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল বারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর ৬ নভেম্বর প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে। তিনি তার অভিযোগপত্রে তাকে কোন কারণ ছাড়াই জেএসসি পরীক্ষার সকল দায়িত্ব পালন থেকে অন্যায় ভাবে সরিয়ে রেখেছেন এবং স্কুল জাতীয়করণের জন্য তারসহ অন্য শিক্ষকদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়েছে। কিন্তু এক বছরেও জাতীয়করণের সামন্যতম অগ্রগতি না হওয়ায় আদায়কৃত টাকাগুলো ফেরৎ চাইলে তা দেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন।এই সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল বারী প্রধান শিক্ষকসহ ৬জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রকার হয়রানির শিকার হওয়ার আশংকায় ১০ নভেম্বর ভোলাহাট থানায় সাধারণ ডায়রী করেছেন।

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক সাদেকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলেন। সনদ জালিয়াতকারী শিক্ষকের ব্যাপারে তিনি আরো বলেন, তাকে পরপর ৩ বার কারণ দর্শানো নোটিশ প্রদান করা হলেও কোন উত্তর দেয় নি। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে  স্কুল সভাপতি মাসুদ রানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সহকারী শিক্ষক হামিমার নিবন্ধন সনদ জাল, নিয়মিত কমিটির প্রস্তুতি চলছে এবং অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি মিথ্যা।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফিরোজ হাসানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের যে অভিযোগ করা হয়েছে তার ব্যাপারে তদন্ত অব্যহত আছে।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি