আজ রবিবার, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান হেদায়েত উল্লাহ       কোটা পদ্ধতির সংস্কার দাবিতে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা       নবীগঞ্জে অজ্ঞাত কিশোরীর লাশ উদ্ধার       মণিরামপুরে ৪ দিন ধরে শিশু শ্রমিক নিখোঁজ       দুই সিটির উপ-নির্বাচন স্থগিত, রুল নিষ্পত্তির নির্দেশ       জিয়া চ্যারিটেবল মামলার শুনানি কাল পর্যন্ত মুলতবি       স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে দু’গ্রুপের সংঘর্ষ আহত ২০      
রোহিঙ্গাদের ত্রাণের জটিলতা নিরসনের আহ্বান এনজিও ফোরামের
Published : Monday, 18 December, 2017 at 8:11 PM, Count : 155
স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ত্রাণ প্রকল্প অনুমোদনে জটিলতা ও দীর্ঘসূত্রিতার অবসান চায় কক্সবাজার সিএসও এনজিও ফোরাম। গতকাল রোববার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানায় সংগঠনটি। সংগঠনের কো-চেয়ারম্যান রেজাউল করিম চৌধুরী লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত আগস্ট মাসে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা যখন কক্সবাজারে আসা শুরু করে সেই থেকে দেশি-বিদেশি এনজিওরা এনজিও অ্যাফেয়ার্স ব্যুরোর জরুরি প্রকল্প (সর্বোচ্চ ২-৩ মাস মেয়াদি) হিসেবে অনুমোদন নিয়ে স্থানীয়ভাবে জেলা প্রশাসক এবং রিলিফ কমিশনারের তত্ত্বাবধান ও সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে কাজ করছে। এনজিও ব্যুরোর কর্মকর্তারা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন ও অবস্থান করে এতে সহযোগিতা করছেন। কিন্তু নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে রিভিশন বা পর্যালোচনা করে প্রকল্প অনুমোদন প্রস্তাবনা এবং নতুন প্রকল্প প্রস্তাবনা যা এফডি-৭ নামে পরিচিত তার অনুমোদন শ্লথ হয়ে যায়। আগের মতো বিধি অনুসারে সব ধরনের অনুমোদন দেয়া থেকে বিরত রয়েছে এনজিও ব্যুরো।
তিনি আরও বলেন, বিশ্বস্ত সূত্র থেকে আমরা জানতে পেরেছি যে, সরকারের নির্দেশনা অনুসারে এখন সব রোহিঙ্গা ত্রাণ সম্পর্কিত প্রকল্প প্রস্তাবনা দেশীয় এনজিও হলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা শাখার পূর্ব অনাপত্তি নিতে হবে। আর বিদেশি এনজিও হলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দুই জায়গা থেকে অনাপত্তি নিতে হবে। কিন্তু নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো এনজিও অনাপত্তিপত্র পায়নি। ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেশীয় ও স্থানীয় এনজিওরা।
রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, রিভিশন প্রকল্পগুলো ডিসেম্বরের মধ্যে অনুমোদন করা না গেলে ত্রাণ কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাবে ও এর সঙ্গে জড়িত ৩ থেকে ৪ হাজার কর্মীর বেতন দেয়া যাবে না। তিনি আরও বলেন, আমরা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছি রোহিঙ্গা শিবিরে জঙ্গিবাদি কোনো তৎপরতা যাতে উৎসাহিত বা প্ররোচিত না হয়, সেজন্যই সরকার এনজিও প্রকল্পসমূহের জন্য পূর্ব অনাপত্তির অবতারণা করেছে। কিন্তু আমরা এ পর্যন্ত সেখানে কোনো জঙ্গিতৎপরতা দেখতে পাইনি। এর পক্ষে কোনো প্রমাণও পাওয়া যায়নি। এ সময় তিনি মানবিক কারণে বেশ কয়েকটি দাবি তুলে ধরেন। সংবাদ সম্মেলনে অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার সিএসও এনজিও ফোরামের কো-চেয়ারম্যান-আবু মোর্শেদ চৌধুরী, আইএসডির নাজির আহমেদ, এডাবের সমন্বয়ক একেএম জসিম, মোস্তফা কামাল আকনসহ আরও অনেকে।






« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি