আজ শনিবার, ৭ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২০ জানুয়ারী ২০১৮ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : বিশাল ব্যবধানে শ্রীলঙ্কাকে হারাল টিম টাইগার       শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মচারী নিখোঁজ       তারুণ প্রজন্মকেই আধুনিক সমাজ বিনির্মাণে এগিয়ে আসতে হবে : শিরীন শারমিন       রক্ত পরীক্ষায় খুব সহজেই ক্যান্সার শনাক্ত!       দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেলেন অর্থমন্ত্রী, আহত ৩০       না.গঞ্জে নিখোঁজের ১২ দিন পর মাদ্রাসার ছাত্রীর লাশ উদ্ধার       সাগরদাঁড়িতে আগামীকাল শুরু হচ্ছে সপ্তাহব্যাপী মধুমেলা      
গবেষণা ও প্রকাশনার অভাবে পিছিয়ে আয়ুর্বেদ চিকিৎসা
Published : Saturday, 13 January, 2018 at 8:54 PM, Count : 119
বায়েজীদ মুন্সী : মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ও রোগ মুক্তির জন্য প্রাচীনকাল থেকেই চলছে আয়ুর্বেদ চিকিৎসা পদ্ধতি। আর এতে উপাদান হিসেবে বিভিন্নভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে ভেষজ উদ্ভিদের রস, কষ, লতাপাতা, ছাল, শিকড়, ফুলফল ইত্যাদি। সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতি অনেক এগিয়ে গেলেও খুব একটা এগুতে পারেনি আয়ুর্বেদ চিকিৎসা। এখনও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পূর্বেকার মনীষীদের রেখে যাওয়া গবেষণা, পরীক্ষা-নিরীক্ষা, পরিচর্যা ও বিশ্লেষনের ওপর ভিত্তি করেই চলতে হচ্ছে। এক্ষেত্রে গবেষণা ও প্রকাশনা বাড়ানো প্রয়োজন বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ইউনানি ও আয়ুর্বেদী অজস্র ওষুধের এক বিরাট ভা ার। তবে বাংলাদেশে আয়ুর্বেদ চিকিৎসার প্রসার তুলনামূলকভাবে খুবই কম। এক্ষেত্রে গবেষণা ও প্রকাশনা বাড়াতে হবে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সীতেশ চন্দ্র বাছার বলেন, নানা কারণে বাংলাদেশের গ্রামে-গঞ্জে বসবাসকারী শতকরা ৭৫ ভাগ নিম্নবিত্ত মানুষ প্রাথমিক চিকিৎসায় গুণগত মান সম্পন্ন ইউনানী, আয়ূর্বেদ, হার্বাল ও হোমিওপ্যাথি ওষুধের ব্যবহার নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। মানসম্পন্ন এই ট্র্যাডিশনাল মেডিসিন উৎপাদন ও বাজারজাত করে চীন ও ভারত তাদের অভ্যন্তরীণ চাহিদা পূরণ করার পর বিদেশে রফতানি করছে।
তিনি বলেন, যদিও হাতেগোনা কয়েকটি বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান মান সম্পন্ন ট্র্যাডিশনাল মেডিসিন উৎপাদন ও বাজারজাত করছে, কিন্তু আমরা আজও অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারিনি।
গুণগত মানসম্পন্ন ইউনানী, আয়ূর্বেদ, হারবাল ও হোমিওপ্যাথি ওষুধ উৎপাদন করে দেশের মানুষের চাহিদা পূরণের পর চীন ও ভারতের মতো আমাদের পক্ষেও বিদেশে রফতানি করা সম্ভব। এ জন্য এ সংক্রান্ত শিক্ষা ব্যবস্থা ও গবেষণার উন্নতির পাশাপাশি সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা আরও শক্তিশালী ও আধুনিকায়ন করা প্রয়োজন।
জনস্বাস্থ্য অধিদফতরের হোমিও অ্যান্ড ট্র্যাডিশনাল মেডিসিনের ব্যবস্থাপক ডা. মনোয়ারা সুলতানা বলেন, রোগবালাই থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য মানুষ সৃষ্টির শুরু থেকেই নানা পন্থা অবলম্বন করেছে। ইউনানি ও আয়ুর্বেদী অজস্র ওষুধের এক বিরাট ভান্ডার।
এই বিষয়ে ভালো শিক্ষক নেই, পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন ছিল না। তিনি বলেন, অনেক পুরনো বিষয় হিসেবে এর যতটা চর্চা হওয়ার কথা ততটা হয়নি। আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি, আয়ুর্বেদের সাথে সংশ্লিষ্টদেরও এগিয়ে আসতে হবে।
এ বিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সরদার আবুল কালাম বলেন, বাংলাদেশে আয়ুর্বেদ চিকিৎসার প্রসার বাড়াতে আরো অনেক প্রকাশনা লাগবে, গবেষণা করতে হবে। তা না হলে কোনদিকে ঘাটতি আছে সেটা বোঝা যাবে না। এক্ষেত্রে সরকার পাশে ছিল, আছে, থাকবে। আয়ুর্বেদের জন্য সরকার আলাদা ডিপার্টমেন্ট করার কথা ভাবছে বলে জানান তিনি।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি