আজ মঙ্গলবার, ৩ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : সরকারের আশ্বাসে অনশন ‌ভাঙলেন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী শিক্ষকরা       প্রণব মুখার্জিকে ডি-লিট ডিগ্রি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের       একনেকে ১৮৪৮৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৪ প্রকল্প অনুমোদন       ৮ ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল       সিদ্ধান্তে অটল শাকিব খান, সমঝোতা চান অপু বিশ্বাস       চাঁদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩        আজ আ.লীগের মেয়র প্রার্থীর নাম ঘোষণা      
অনশনে অসুস্থ ১৪০ মাদ্রাসা শিক্ষক মিলছে না আশ্বাস
Published : Sunday, 14 January, 2018 at 8:38 PM, Count : 51
অনশনে অসুস্থ ১৪০ মাদ্রাসা শিক্ষক মিলছে না আশ্বাসস্টাফ রিপোর্টার : জাতীয়করণের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আমরণ অনশনের ৫দিনে গতকাল শনিবার ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকদের উপস্থিতি আরো বেড়েছে। এদিন নতুন করে অনেক শিক্ষক অসুস্থ হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। আন্দোলনের ১৩তম দিনে সবমিলে ১৪০জন শিক্ষক অসুস্থ হয়েছেন। এদের মধ্যে অনেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এখনো অনেকে হাসপাতালের বেডে ভর্তি আছেন। অনসনস্থলে প্রায় ১০ থেকে ১৫ জন শিক্ষককে স্যালাইন দিয়ে রাখা হয়েছে। অসুস্থদের অধিকাংশই অতিরিক্ত শীতের কারণে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ অবস্থায় দাবি পূরণে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের আশ্বাস পাননি শিক্ষকরা। শিক্ষক নেতারা বলছেন, ভাগ্য এবার যাই আছে, দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত তারা কর্মসূচি চালিয়ে যাবেন।
বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির ব্যানারে গত ১ জানুয়ারি থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান ধর্মঘট পালন করে আসছেন ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকরা। পরে ৯ জানুয়ারি থেকে লাগাতার অমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করছেন তারা। যাদের যৌক্তিক দাবি জাতায়করণের সুুনির্দিষ্ট আশ্বাস না পাওয়া পর্যন্ত তারা আন্দোলন করে যাবেন।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির সভাপতি আলহাজ কাজী রুহুল আমিন চৌধুরী গতকাল ভোরের ডাককে জানান, কন কনে শীতে টানা আট দিন অবস্থান ধর্মঘটের পর গত মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া আমরণ অনশনে গতকাল শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৪০ জন অসুস্থ হয়ে পড়েন। এর মধ্যে অধিকাংশ শিক্ষক অতিরিক্ত ঠা ায় নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি আছেন ৭ জন।
তিনি আরও জানান, গতকাল শনিবার গণফোরামের নেতা ও বিশিষ্ট আইনজীবী ড. কামাল হোসেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনশনরত শিক্ষকদের কাছে আসার কথা থাকলেও তিনি আসেননি। তবে গণফোরামের পক্ষ থেকে দলের মহাসচিব মোস্তফা মহসীন মন্টু আমাদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন।
জাতীয়করণের দাবিতে আট দিনের টানা অবস্থান কর্মসূচি শেষে গত মঙ্গলবার থেকে অনশন শুরু করেন মাদ্রাসা শিক্ষকরা। বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির ব্যানারে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করছেন তারা।
অনশনরত শিক্ষকরা বলছেন, ইবতেদায়ী মাদ্রাসার সব কার্যক্রম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো হলেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বেতন-ভাতা পেলেও ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকরা তেমন কিছুই পান না। দিন দিন বাসা বাড়া থেকে শুরু করে নিত্যপণ্যসহ সবকিছুর দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাহলে আমরা কীভাবে বাঁচবো? গত ৯ জানুয়ারি বেলা ১১টা থেকে চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে অনশন শুরু করেন ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষকরা। এখন পর্যন্ত সরকারের পক্ষ থেকে কোনো আশ্বাস পাননি তারা।
বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির মহাসচিব কাজী মোখলেসুর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন বিনা বেতনে চাকরি করতে করতে আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। জাতীয়করণ ছাড়া আমাদের আর ভিন্ন কোনো পথ খোলা নেই। সরকার প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয়করণ করেছে। আমরাও তো প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম অংশ। তাহলে আমাদের কেন বাকি রাখা হবে? আমাদের বিশ্বাস প্রধানমন্ত্রীকে বিষয়টি ঠিকমতো বোঝালে তিনি নিরাশ করবেন না। তাই আমরা তার দিকেই তাকিয়ে আছি।
জানা গেছে, মাদ্রাসা বোর্ডের নিবন্ধন পাওয়া ১০ হাজারের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা আছে। এতে শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। মাত্র এক হাজার ৫১৯টি ইবতেদায়ি মাদরাসার প্রধান শিক্ষক দুই হাজার ৫০০ টাকা ও সহকারী শিক্ষকরা দুই হাজার ৩০০ টাকা ভাতা পান। বাকি শিক্ষকরা দীর্ঘদিন ধরে বিনা বেতনে চাকরি করছেন।   
জানা যায়, মাদ্রাসা বোর্ডের নিবন্ধন পাওয়া ১০ হাজারের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা আছে। এতে শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। মাত্র এক হাজার ৫১৯টি ইবতেদায়ি মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক দুই হাজার ৫০০ টাকা ও সহকারী শিক্ষকরা দুই হাজার ৩০০ টাকা ভাতা পান। বাকি শিক্ষকরা দীর্ঘদিন ধরে বিনা বেতনে চাকরি করছেন।
এর আগে, গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর থেকে রাজধানীতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বেতন-ভাতায় বৈষম্য নিরসনের দাবিতে আমরণ অনশন করে বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক মহাজোট। প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে ২৫ ডিসেম্বর তারা অনশন কর্মসূচি শেষ করেন। পরে এমপিওভুক্তির দাবিতে সদ্যবিদায়ী বছরের ৩১ ডিসেম্বর থেকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আমরণ অনশন শুরু করেন নন-এমপিও শিক্ষকরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্বাসে ৫ জানুয়ারি অনশন ভাঙেন তারা।






« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি