আজ রবিবার, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান হেদায়েত উল্লাহ       কোটা পদ্ধতির সংস্কার দাবিতে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা       নবীগঞ্জে অজ্ঞাত কিশোরীর লাশ উদ্ধার       মণিরামপুরে ৪ দিন ধরে শিশু শ্রমিক নিখোঁজ       দুই সিটির উপ-নির্বাচন স্থগিত, রুল নিষ্পত্তির নির্দেশ       জিয়া চ্যারিটেবল মামলার শুনানি কাল পর্যন্ত মুলতবি       স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে দু’গ্রুপের সংঘর্ষ আহত ২০      
তিনি ইউপি সদস্য তিনিই সফল কৃষক
Published : Sunday, 11 February, 2018 at 12:11 PM, Count : 322
তিনি ইউপি সদস্য তিনিই সফল কৃষকরাজনগর (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা : একজন মানুষ চেষ্টা করলে সব কিছু করতে পারে। যদি তার ইচ্চা শক্তি থাকে। এমনি একটি বাস্তব দৃষ্টান্ত রাজনগরের মনসুরনগর ইউপি সদস্য প্যানেল চেয়ারম্যান এম মামুনুর রশিদ।

বড়কাপন গ্রামের রেনু মিয়ার ছেলে। তিন বছর পূর্বে কৃষকের বাজেট অনুষ্টান করতে মৌলভীবাজারের রাজনগরের মনসুরনগর ইউনিয়নে এসেছিলেন ‘মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠান খ্যাত শায়খ সিরাজ। মহলাল উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে সে অনুষ্ঠান করা হয়েছিল ইউনিয়র পরিষদের সহযোগিতায়। ইউপি সদস্য হিসেবে কাছে থেকেই সেই অনুষ্টান দেখেছিলেন ৩নং ওয়ার্ডের সদস্য এম মামুনুর রশিদ। ওই অনুষ্ঠানেই তিনি কৃষির প্রতি আকৃষ্ট হন।

এছাড়াও বাড়ির আশে পাশে অনেকেই সবজি চাষ করেন। মনের মতো সবজি পাওয়া যায় না তাতে। একটু জেদ চেপেছিল মনে। সেই জেদ ও শায়খ সিরাজের সংস্পর্শে সফল কৃষক হয়ে ওঠেন মনসুরনগর ইউনিয়নের সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান এম মামুনুর রশিদ। তিন বছর আগে অল্প কিছু জমিতে চাষ শুরু করে এখন তিনি তিন বিঘারও বেশি জমিতে সব ধরনের সবজি চাষ করছেন। তার জমির একেকটি কোমড়া ১৫-২০ কেজি ওজনের হয়। জমি থেকেই নিয়ে যায় ব্যবসায়ীরা।
 
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এম মামুনুর রশিদ শ্রমিকদের বিভিন্ন কাজ দেখিয়ে দিচ্ছেন। তার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রথম বছর তিনি এক বিঘা জমিতে টমেটো, ঝিঙা, বরবটি, করলাসহ বিভিন্ন প্রকারের সবজি চাষ করেছিলেন। ওই সময় বেড়ার জন্য বাঁশ, বিজ ও কিছু না জানার কারণে তেমন লাভ হয়নি। খেয়েদেয়ে টাকা হাজর পঁচিশের মতো লাভ হয়েছিল। এরপর থেকে তার আরো প্রেরণা জাগে। সবজি চাষে দক্ষ না হলেও শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন সবজির বীজ বিক্রেতা ও কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধিদের কাছ থেকে ধারণা নিয়ে শুরু করেছিলেন চাষ। তাদের পরামর্শ মতো কাজ করে তিনি ব্যর্থ হন নি। পরের বছর আরো ২বিঘা জমিতে টমেটো, বেগুন ঝিঙা, শসা, করলা, মিষ্টি কুমড়া, পুইশাক, পাতাকপি, ফুলকপিসহ বিভিন্ন প্রকারের সবজি লাগিয়েছেন। বেড়া ও সবজির জন্য বাশের খোটিক্রয় করে যথেষ্ট লাভবান হন।
 
মামুনুর রশিদ বলেন, রাজশাহী কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট থেকে কোমড়ার বীজ সংগ্রহ করেন। একেকটি কোমড়া ৮-২০ কেজি পর্যন্ত ওজন হয়। ভালো জাতের টমেটোর চারা রোপন করেছেন। লম্বা সময় পর্যন্ত ফলন পাওয়া যাবে। এখন চারজন শ্রমিক প্রতিদিন কাজ করছেন সবজি ক্ষেতগুলোয়। বাড়িতে গরুও পালন করছেন। কীটনাশক ও সার কম ব্যবহার করে জৈব সারের উপর গুরুত্ব দিচ্ছেন বেশি। এছাড়াও পোকার আক্রমণ থেকে সবজি বাঁচানোর জন্য বিভিন্ন ফাঁদ ব্যবহার করছেন।

তিনি আরো বলেন, এবছর তার খরচ কম। বেড়া ও খুটির বাঁশ আগেই কিনা হয়ে গেছে। এবছর কিনতে হচ্ছে না। তার এবার লাভের সংখ্যাও বেশি। খরচ বাদে এবছর লাভের সংখ্যা তিন অঙ্কের কোটা পেরিয়ে গেছে।

এম মামুনুর রশিদ বলেন, মেম্বার হয়েছি বিধায় জনগণের কাজে দৌড়াতে হয়। বিভিন্ন সমস্য, বিচার-সালিশ করেও কৃষি ক্ষেতে সময় দিতে হয়। বেশি জমিতে সবজি চাষ করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

রাজনগর উপজেলা কৃষি কমকর্তা শেখ আজিজুর রহমান বলেন, আমি তার ক্ষেত পরিদর্শন করেছি। তিনি কম সময়ে সবজি চাষে দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। আশারাখি তিনিও একদিন আকলু ভাইয়ের মতো (জাতীয় পুষ্কার প্রাপ্ত কৃষক) জাতীয় পুরষ্কার পাবেন। তাকে পরামর্শ দিয়েছি আগাম জাতের সবজি চাষ করার জন্য। এতে বেশি লাভবান হওয়া যাবে। এছাড়াও তাকে দেখে আরো ৮-১০জন কৃষক সবজি চাষে উদ্বোদ্ধ হবে।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি