আজ সোমবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ খ্রিস্টাব্দ
ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ
শিরোনাম : চলে গেলেন রংপুরের সাবেক মেয়র ঝন্টু       খালেদার জামিনের আদেশ নথি আসার পর       জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান হেদায়েত উল্লাহ       কোটা পদ্ধতির সংস্কার দাবিতে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা       নবীগঞ্জে অজ্ঞাত কিশোরীর লাশ উদ্ধার       মণিরামপুরে ৪ দিন ধরে শিশু শ্রমিক নিখোঁজ       দুই সিটির উপ-নির্বাচন স্থগিত, রুল নিষ্পত্তির নির্দেশ      
রাজধানীতে বিএনপির অবস্থান কর্মসূচি
আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদাকে মুক্ত করা হবে : ফখরুল
Published : Wednesday, 14 February, 2018 at 8:41 PM, Count : 26
স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ধারাবাহিক আন্দোলনের অংশ হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে হাজারো নেতা-কর্মী অবস্থান নেয়। নেতা-কর্মীরা নানা স্লোগানে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন। ব্যানার ও প্ল্যাকার্ডে খালেদা জিয়ার ছবি নিয়ে অনেক নেতা-কর্মী কর্মসূচিতে অংশ নেন। সকাল ১১টায় এই কর্মসূচি শুরু হয়ে শেষ হয় দুপুর ১২টায়। এর আগে দুই দফায় স্থান পরিবর্তন করা হয়। পূর্বে ঘোষণা দেয়া হয় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি হবে। কিন্তু রাতে জানানো হয় রমনায় ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনের সামনে কর্মসূচি হবে। তবে গতকাল সকাল ১০টায় এক প্রেস ব্রিফিয়ে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী জানান, নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির পূর্বঘোষিত অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হবে। তিনি জানান, জাতীয় প্রেসক্লাব এবং ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটউশন মিলনায়তনে প্রশাসন অনুমতি না দেয়ায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে কর্মসূচি আনা হয়। এ সময় সরকার ও  প্রশাসনের সমালোচনা করেন বিএনপির এই নেতা।
গতকাল সকাল ১১টায় আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপির অবস্থান কর্মসূচি শুরু হলেও দলটির নেতা-কর্মীরা নগরীর বিভিন্ন থানা-ওয়ার্ড থেকে সকাল ১০টার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হতে থাকেন। বেলা ১১টার দিকে পুরো নয়াপল্টন এলাকা নেতা-কর্মীদের স্লোগানে মুখরিত হয়ে যায়। এরপর কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তৃতা করেন। বক্তৃতার মাঝে মাঝে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে নেতা-কর্মীরা গগনবিদারী স্লোগান দেন।
অন্যদিকে বিএনপির এই কর্মসূচি ঘিরে সকাল থেকে দলের নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। জলকামানের গাড়িসহ পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ ও সংস্থার বেশ কিছু গাড়ি কাছাকাছি দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। কর্মসূচি চলার সময় বিএনপি নেতা-কর্মীদের ঘিরে রাখেন দাঙ্গা পুলিশের সদস্যরা। এ সময় দাঙ্গা পুলিশের বেষ্টনী পার হয়ে বিএনপির যেসব নেতা-কর্মী রাস্তায় চলে আসছিলেন, তাঁদের আবার সমাবেশে যেতে বাধ্য করছিল পুলিশ।
সভাপতির বক্তব্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, খালেদা জিয়াকে একটি জীর্ণ ও পরিত্যক্ত কারাগারে রাখা হয়েছে। এটা মানবাধিকার লঙ্ঘন। এর বিচার হবে।  তিনি বলেন, ‘আমাদের এই সংগ্রাম, এই লড়াই দেশনেত্রীকে মুক্ত করে নিয়ে আসার লড়াই। এই লড়াই আমাদের নেতা-কর্মীদের মুক্ত করার লড়াই। এই লড়াই বাংলাদেশের মানুষকে মুক্ত করার লড়াই, গণতন্ত্রকে মুক্ত করার লড়াই।’ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বর্তমান সরকার সম্পূর্ণভাবে গণবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে। সরকার দেউলিয়া হয়েছে বলেই আজকে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা এবং প্রায় ১৫ লাখ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়াকে কারাগারে নিয়ে সরকার মনে করছে, বাংলাদেশের মানুষকে স্তব্ধ করা যাবে, দমিয়ে রাখা যাবে। সেটা যাবে না। দেশের মানুষ অবশ্যই আন্দোলনের মাধ্যমে কারাগার থেকে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে নিয়ে আসবে। নৈতিকভাবে এই সরকারের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নেই।’
এ সময় আন্দোলনের মাধ্যমে কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করা হবে বলেও মন্তব্য করেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। এ জন্য সারা দেশের নেতাকর্মীদের দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে আহ্বান জানান তিনি। ব্যারিস্টার মওদুদ বলেন, ‘একটি মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে খালেদা জিয়াকে নির্জন কারাগারে আটক করে রাখা হয়েছে। এ আন্দোলনের মাধ্যমে আমরা তাকে কারাগার থেকে মুক্ত করব। পাশাপাশি আইনি প্রক্রিয়াও চালিয়ে যাব।’
কর্মসূচিতে অংশ নেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন, জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, জয়নুল আবদিন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, আবুল খায়ের ভূঁইয়া, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন, বরকতউল্লাহ বুলু, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, ফজলুল হক মিলন, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সেলিম ভূঁইয়া, আবদুস সালাম আজাদ, শহীদুল ইসলাম বাবুল, কাদের গণি চৌধুরী, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দীন টুকু, মামুন হাসান প্রমুখ। এ ছাড়া ২০-দলীয় জোট নেতাদের মধ্যে এলডিপির শাহাদত হোসেন সেলিম, ন্যাপের গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া, এনপিপির মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, জাগপার খন্দকার লুৎফর রহমান, এনডিপির মঞ্জুর হোসেন ঈশা, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান, পিজিপির আবদুল মতিন সাউদ প্রমুখ অবস্থান কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


কাগজে যেমন ওয়েবেও তেমন
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সোস্যাল নেটওয়ার্ক
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
মেসার্স পিউকি প্রিন্টার্স, নব সৃষ্ট প্লট নং ২০, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং ৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত।
বার্তা বিভাগ : ৯৫৬৩৭৮৮, পিএবিএক্স-৯৫৫৩৬৮০, ৭১১৫৬৫৭, ফ্যাক্স : ৯৫১৩৭০৮ বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন ঃ ৯৫৬৩১৫৭
ই-মেইল : bhorerdk@bangla.net, adbhorerdak@gmail.com,  Developed & Maintenance by i2soft
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি